No icon

ঈদের আগেই হতে পারে কুবি ছাত্রদলের কমিটি

ছাত্রদলের অভিভাবক বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে সারা দেশের বিভিন্ন জেলা,মহানগর এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সহ উপজেলাকে ঢেলে সাজানোর কাজ হাতে নিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। তারই অংশ হিসেবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) ছাত্রদলের কমিটিও ঈদের আগেই হচ্ছে।

জানা গেছে, প্রতিষ্ঠাকালিন (বর্তমান) কুবি ছাত্রদলের কমিটি তাদের মেয়াদ ৪বছর অতিক্রম করছে। বর্তমান কমিটির সভাপতি, সাধারন সম্পাদক এবং সিনিয়র সহ-সভাপতির ছাত্রত্ব না থাকায় নিয়মিত ছাত্রদের সাথে যোগাযোগ নেই। স্থবির হয়ে পড়েছে কুবি ছাত্রদলের কার্যক্রম। তাই নতুন কমিটি হওয়া সব ছাত্রনেতাদের এবং সময়ের দাবী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বর্তমান সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী নোমান, সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন নিজেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের দায়িত্ব যোগ্য ও ত্যাগী ব্যক্তির হাতে অর্পন করতে কাজ করে যাচ্ছেন। তারা চান, স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন ইমেজের ত্যাগী ও সাহসী নেতৃত্ব।

এ ক্ষেত্রে এগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান শুভ। শুভ কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার সন্তান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ও ২০০৮ সালে তার নির্বাচনী এরিয়া ছিল। সে সময় বেশ জোরালো ভূমিকা ছিল তার।

এ বিষয়ে শুভ বলেন, আমি বিএনপি পরিবারের সন্তান, আমার বাবা তৃনমূলের রাজনীতি করেতা, উনি আমার নিজ ৪নং ওয়ার্ডে বিএনপির সাধারন সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা আমার বেশচেনা।বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমার বাড়ির দূরত্ব সামান্য। এই এলাকার মানুষজন আমার খুবই আপনজন। তাদের সাথেই উঠাবসা দীর্ঘদিনের। আমি নিজেও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শ লালন করে দীর্ঘ ১২টি বছর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের কার্যক্রম যথাসময়ে নিজ অনুসারীদের নিয়ে সকলের সাথে সমন্বয় করে চালিয়ে যাচ্ছি। সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনা করতে গিয়ে বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হয়েছিঃ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জেল খেটেছি, মামলা খেয়েছি বহুবার। এরমধ্যে ১টি ২০১৪ সালের নির্বাচনের আন্দোলনের অংশ হিসেবে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের ঘোষিত ছাত্রধর্মঘট পালন করলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিস্ফোরক মামলা দায়ের করে যেটি এখনো ফেরারি জীবন কাটাচ্ছি। আরেকটি ২০১৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে কার্যক্রম করতে গিয়ে নিজ এলাকায় দায়ের করা মামলা; এখানেই আওয়ামী সন্ত্রাসীরা থেমে থাকেনি -আমার বাড়ি ঘরে হামলা হয়েছে একাধিক বার যার। 

আরেকটি মামলা হল বর্তমান কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের কমিটির জাতীয় কাউন্সিলে ভোট দিতে গেলে তার পূর্বের দিন পল্টন থানা কতৃক বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে গ্রফতার করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরন করেন যেটি প্রেসব্রিফিং করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।

এছাড়াো বিশ্ববিদ্যালয়ে আওয়ামী শিক্ষকদের হাতে বৈস্বম্মের শিকার হতে হয়েছে। দলীয় কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে পুলিশের ছোড়া গুলিেত বিদ্ধ হয়েছি। এসকল ত্যাগ শিকার করে আজও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলকে সুসংগঠিত করতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। তাই আমার নিয়মিত শিক্ষাবর্ষ শেষ হলেও ভর্তি হয়েছি পুনরায়। ক্যাম্পাসে স-অবস্থান নিশ্চিত করতে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করাই শ্রেয়। তাতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের খুব কাছাকাছি যাওয়া যায়।

শুভ আরো বলেন, আমাকে যদি দায়িত্ব দেয়া হয় অবশ্যই আমার মেধা, শ্রম আর বিভিন্ন অভিজ্ঞতা দিয়ে দলকে আরও সুসংগঠিত করবো। যেকোেনা সংকটে মাঠে থাকবো। আদর্শের প্রয়োজনে জীবন দিব।

আসন্ন কুবি ছাত্রদলের কমিটিতে আহবায়ক ও সদস্য সচিব হতে বর্তমান কমিটির অনেকেই তদবির চালাচ্ছে তাদের মধ্যে বর্তমান কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি -আবদুল্লাহ আল মামুন, ১নং সহ-সভাপতি গিয়াসউদ্দিন এবং প্রচার সম্পাদক-আবুল বাশার। তাদের মধ্যে আবদুল্লাহ আল মামুনের ছাত্রত্ব নেই,  রাজনীতিতে অনিয়মিত এবং সে   দীর্ঘ ৪/৫বছর নিজ এলাকাতেই থাকেন। মোঃ গিয়াস উদ্দিনেরও ছাত্রত্ব নেই, বিবাহিত এবং কর্মে নিয়জিত। অন্যদিকে আবুল বাশার আসন্ন কমিটিতে সদস্য সচিব পদপ্রার্থী। 

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, আমরা অনেকগুলো সাংগঠনিক ইউনিটের কমিটির কাজ হাতে নিয়েছি। অবশ্যই অবিবাহিত, যাদের ছাত্রত্ব আছে, ও ত্যাগীদের হাতে দায়িত্ব তুলে দেয়ার স্বার্থে তাদের তথ্য সংগ্রহ করতে বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।সকল তথ্য বিশ্লেষণ করে জেলা,মহানগর ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ৩১সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি দেয়া হবে।

Comment As:

Comment (0)