No icon

৫০০ টাকায় কেনা যায় ছাত্রদলের সাত্তারকে

আংশিক কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণার একদিনের মাথায় বিদ্রোহের সুর উঠছে বিএনপির ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রদলে। ঘোষিত কমিটিতে ঠাঁই না হওয়া এবং পূর্ণাঙ্গ কমিটিতেও বাদ পড়ার শঙ্কায় বঞ্চিদের মধ্যে বিদ্রোহ দানা বাঁধছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
একটা বড় অংশের নেতাকর্মীদের সংগঠন থেকে বাদ দেয়ার নীল নকশা বাস্তবায়ন হচ্ছে— এমন অভিযোগ তুলে ক্ষোভে ফুঁসছেন বিদ্রোহীরা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ছাত্রদলের সদ্য ঘোষিত কেন্দ্রীয় কমিটির এক সহ-সভাপতি বলেন, ছাত্রদল দপ্তর সম্পাদক সাত্তার পাটোয়ারী দপ্তরের দায়িত্বে থাকায় ছাত্রদল সাংগঠনিক নেতা তারেক রহমানকে ভুল ও মিথ্যা তথ্য প্রদান করে। দুঃসময়ে সংগঠনকে সংগঠিত করার কথা থাকলেও দপ্তর সম্পাদক ‘মাই ম্যান’ খুঁজে কমিটিতে স্থান দিয়েছেন। নিজ জেলা চাঁদপুর থেকে চারজন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এগারোজন ও বিভাগীয় সহ সহ সাংগঠনিক - সিলেট, কুমিল্লা ও ময়মনসিংহ সহ সর্বমোট ১৭ জন কে স্থান পেতে সহযোগিতা করেছে দপ্তরের এই দায়িত্বশীল নেতা।
যা এই বিদ্রোহকে ত্বরাণ্বিত করেছে।
তিনি বলেন, সাবেক এই দপ্তর সম্পাদক পাঁচশত টাকায় বিক্রি গেছে  এমন তথ্য ও প্রমান রয়েছে।লন্ডনের কথা ও দপ্তরের আসবাবপত্রের কথা বলেও চাঁদা তুলার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। স্বজনপ্রীতি ও যোগ্য নেতাদের বাদ দিয়ে কথিত প্রেমিকা সুলতানা জেসমিন জুঁইকে সহ সাধারণ সম্পাদক হতে সহযোগিতা করেন।
তিনি আরো বলেন, বর্তমানে অযোগ্যদের দিয়ে কমিটি করা হচ্ছে এর ফলে বাদ পড়ছেন যোগ্য, ত্যাগী ও রাজপথের সৈনিকেরা। যাদেরকে পদায়ন করা হচ্ছে তাদের মধ্য থেকে আবার বেছে বেছে নিজের অনুসারীদেরকেই কমিটিতে স্থান দিচ্ছেন।
এদিকে ৬০ জনের আংশিক কমিটির তালিকা প্রকাশের এক দিনের মাথায় শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তিন দফা ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। ধারণা করা হচ্ছে, কমিটিতে ঠাঁই না হওয়া বিবাহিত ও সিনিয়র নেতাদের একটি অংশ এভাবে বিদ্রোহের আভাস দিচ্ছেন। এমনকি আগামীকাল (রবিবার) এ নিয়ে বিক্ষোভ করতে পারেন— এমন আভাসও দিয়েছেন পদবঞ্চিত নেতাদের কেউ কেউ।
ঢাকা,খুলনা, সিলেট, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ বিভাগের নেতাদের মাঝেও দেখা যাচ্ছে তীব্র প্রতিবাদ। স্থানীয় ছাত্রদল নেত্রীবৃন্দ মনে করছেন উক্ত কমিটিতে যোগ্য, মেধাবী ও রাজপথের কর্মীদের মূল্যায়ন হয়নি। দেশ ও দলের এই দুঃসময়ে এমনটা হওয়া কাম্য নয়।
জানা যায়, রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ হয়েছে। শনিবার (২১ ডিসেম্বর) বিকাল পাঁচটা ও ছয়টার দিকে দুই দফায় ককটেল ফাটানো হয়। ছাত্রদলের পদবঞ্চিতরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়াও রাত সাড়ে ৮টায় তিনটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আরও একটি ককটেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় সেখানে পড়ে ছিলো।

Comment As:

Comment (0)